প্রোগ্রামিং এর রোডম্যাপ

লিখেছেন: ইজহারুল ইসলাম || Founder & CTO, টেকনিয়াস || তারিখঃ 15 Jan, 2022


প্রোগ্রামিং শেখার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বিড়ম্বনা হল, প্রাথমিক পর্যায়ে বিষয়টিকে বেশ সহজ মনে হয়। অনেকে ভাবেন, এটি আর আহামরি কী? হয়ত এক সপ্তায় শিখে ফেলবেন। কিন্ত বাস্তবতা হল, অনেকের ক্ষেত্রে এটি দু'চার মাসেও ভালোভাবে আয়ত্ব করা সম্ভব হয় না। এজন্য যে কোন প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজের ক্ষেত্রে কিছু মৌলিক বিষয় সামনে রাখা দরকার। যেন একই ভুলের পুনরাবৃত্তি না হয়। একই পথে বার বার হোঁচট খেতে না হয়। 

সিনট্যাক্স নাকি লজিক?

বিগিনাররা শুরুতে মনে করে, যে কোন একটি ল্যাংগুয়েজের কিছু সিনট্যাক্স শিখে নিলেই হয়ত প্রোগ্রামিং শিখে যাবে। সার্বিকভাবে বিষয়টি সঠিক নয়। সিনট্যাক্স একেবারে প্রাথমিক বিষয়। এটি শেখাও খুব সহজ। কিন্তু প্রোগ্রামিং মানেই কিন্তু সিনট্যাক্স জানা নয়। প্রোগ্রামিং মূলত: আপনার জানা সিনট্যাক্স ব্যবহার করে বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের যোগ্যতা। এখন প্রশ্ন হল, সমস্যার সমাধান করব কীভাবে? আর এই যোগ্যতাই বা কীভাবে তৈরি হবে? 

যে কোন সমস্যা সমাধানের পূর্বশর্ত হল, সেই সমস্যা নিয়ে আপনাকে ভাবতে হবে। সমস্যাকে আগে মথায় নিতে হবে। সমস্যাটা যদি ভালোভাবে বুঝতে সক্ষম হোন, তাহলে আস্তে আস্তে সমাধানের রাস্তাও খুলে যাবে। এজন্য প্রোাগ্রামিং এর একেবারে গোড়ার কাজ হল, 

  1. চিন্তা-ভাবনতা করতে পারা। বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে নানা দিক থেকে চিন্তা করার যোগ্যতা তৈরি করা। অর্থাৎ প্রোগ্রামার হতে হলে আপনাকে চিন্তার সাগরে ডুব দিতে শিখতে হবে। ভাবুক  ও চিন্তক হতে হবে। 
  2. সমস্যা নিয়ে চিন্তার পাশাপাশি সমাধানের চেষ্টা করতে হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রচুর ভুল হতে পারে। কিন্তু আস্তে আস্তে একটা প্যাটার্ন তৈরি হয়ে যাবে। তখন খুব দ্রুত সমস্যা সমাধান করার যোগ্যতা তৈরি হয়ে যাবে।

মুখস্থ নাকি বুঝ?

অনেকে মনে করে প্রোগ্রামিং এর নির্দিষ্ট কিছু পদ্ধতি যদি মুখস্থ বা আয়ত্ব করতে পারি, তাহলে বোধ হয় আমি প্রোগ্রামার হয়ে যাব। বাস্তবতা আসলে সম্পূর্ণ ভিন্ন। প্রোগ্রামিং এ সুনির্দিষ্ট কোন পদ্ধতি মুখস্থ করে নেয়াতে কোন ফায়দা নেই। মূল হল, বিষয়গুলো বোঝার চেষ্টা করা। এখানে প্র্যাকটিস ও বুঝ হলো মূল। এমনকি এখানে কোন কিছু মুখস্থ না করলেও চলবে। আপনি যদি প্রচুর প্র্যাকটিস করেন এবং বিষয়গুলো ভালোভাবে বোঝার চেষ্টা করেন, তাহলে কোন কিছু মুখস্থ না করলেও আপনি ভালো প্রোগ্রামার হতে পারবেন। 

 

কত দিনে প্রোগ্রামার হতে পারব?

এটার আসলে ধরাবাধা কোন নিয়ম নেই। আপনার বুঝশক্তি যদি খুব ভালো হয় এবং সহজেই প্রোগ্রামিং এর বিষয়গুলো ধরতে পারেন, তাহলে অল্প দিনেই প্রাথমিক বিষয়গুলো শিখে নিতে পারবেন। তবে এখানে কিছু বিষয় মাথায় রাখা দরকার। অনেক কনসেপ্ট এমন আছে, যেগুলো পুরোপুরি মাথায় ঢুকতে একটু টাইম লাগে। এগুলো প্রাকটিস করতে করতে স্পষ্ট হয়। এজন্য ব্যাসিক বিষয়গুলো আয়ত্ব হলেও অনেক সময় দেখা যায়, অ্যাডভান্স বিষয়গুলো বুঝতে কষ্ট হচ্ছে। এজন্য হতাশ না হয়ে লেগে থাকতে হবে। 

ডেভেলপার হিসেবে এক্সপার্ট হতে পারব কতো দিনে?

যে কোন বিষয়ে এক্সপার্ট হওয়াটা একটু শ্রমসাধ্য বিষয়। সহজেই কেউ যে কোন বিষয়ে এক্সপার্ট হয়। তাছাড়া প্রোগ্রামিং একটু জটিল বিষয়। এজন্য এখানে এক্সপার্ট হতে হলে আপনাকে প্রচুর সময় দিতে হবে। অধ্যবসায় থাকতে হবে। প্রচুর ডেডিকেশন থাকতে হবে। ত্যাগ, শ্রম ও ধৈর্য্য সহকারে কাজ করে গেলে এক সময় আপনি এক্সপার্ট হয়ে যাবেন। তবে প্রোগ্রামিং এর ক্ষেত্রে একটি সত্য কথা হল, এখানে কেউ সহজে নিজেকে এক্সপার্ট দাব করে না। কারণ, জানার কোন শেষ নেই। পাঁচ-সাত বছর কাজ করার পরও মনে হবে, আমি আর আহামরি তেমন কী শিখেছি? এজন্য প্রোগ্রামিং এ ধৈর্য্য সহকারে পরিশ্রম করা এবং লেগে থাকাই সফলতার মূল।